জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার বিষয়ে যা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

করোনার কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দফায় দফায় ছুটি বাড়িয়ে আগামী ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এজন্য কারিগরি শিক্ষার এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থবর্ষের কিছু পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায়।

এ বিষয়ে বুধবার এক ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, কারিগরি শিক্ষার এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব পরীক্ষাগুলো আটকে রয়েছে সে সব পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আশা করি, মাসখানেক পরেই পরীক্ষাগুলো নিয়ে নিতে পারব। এসব পরীক্ষার পরীক্ষার্থী কম। পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সারা দেশে একেক কেন্দ্রে ভাগ ভাগ করে আমরা পরীক্ষাগুলো নিতে পারব।

শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, পলিটেনিক্যালের বিভিন্ন পর্যায়ের এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থবর্ষের পরীক্ষা কিছু বাকি ছিল। আশা করছি, অল্প সময়ের মধ্যেই নিয়ে নিতে পারব। চূড়ান্ত পর্যায়ে অটো পাস দেয়া সম্ভব না।

তিনি বলেন, এইচএসসিতে অটো পাস দেয়ায় অনেকে লিখেছেন- অটো পাস দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, অনেকে পড়াশোনা শেষ করে কর্মজীবনে প্রবেশ করবেন। তাই পরীক্ষাগুলো ছাড়া যদি অটো পাস দেয়া হয়, তাহলে কর্মজীবনে বাধা সৃষ্টি হবে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, যেহেতু পরীক্ষার্থী কম সেহতেু স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পরীক্ষা নিতে পারব। আপনারা যাতে প্রস্তুতি নেয়ার জন্য মাসখানেক সময় পান সে ব্যবস্থা নিয়েই সূচি ঘোষণা করা হবে।

তিনি বলেন, অষ্টম শ্রেণির সনদ বোর্ড যেভাবে দেয়, সেভাবেই দিবে। করোনার কারণে বাতিল করা জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার সনদ সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডগুলোই দিবে।

উল্লেখ্য, কারিগরি শিক্ষার কিছু পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলেও করোনার কারণে বাকি পরীক্ষা স্থগিত রয়েছে। অন্যদিকে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থবর্ষের ফাইনাল পরীক্ষার ৪-৫টি বিষয়ের পরীক্ষা সম্পন্ন হলেও চারটি বিষয়ে পরীক্ষা, মৌখিক পরীক্ষা ও ব্যবহারিক পরীক্ষা হয়নি।

খবর সারাবেলা /২৫ নভেম্বর ২০২০/এমএম